Press "Enter" to skip to content

জামালগঞ্জে জেএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায়

মো. শাহীন আলম, ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি (সুনামগঞ্জ)::

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার ফেনারবাঁক ইউনিয়নের লক্ষীপুর তাওয়াক্কোলিয়ার দাখিল মাদ্রাসার জেএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। গতকাল শনিবার দুপুরে লক্ষীপুর টি.ডি মাদ্রায় সরজমিনে গিয়ে দেখাযায় প্রবেশ পত্র নিতে আসা শিক্ষার্থীদের অতিরিক্ত ফি চাওয়া হলে পরীক্ষার্থীরা মাদ্রসার বাহিরে অবস্থান করছে। অবস্থানরত পরীক্ষার্থী আসমাউল মিয়া, মো. আব্দুল্লাহ, জুলফা আক্তার, পাখি আক্তার, টাখি আক্তার সহ পরীক্ষাথীর্রা জানান, আমরা প্রথমেই ফরম ফিলাপ বাবদ ৮শত টাকা করে দিয়েছি। আমাদের মাঝে অনেক গরীব মানুষ আছে যাদের পিতা দিন মুজুরী করে। সেই টাকা দিয়ে আমাদের পড়া লেখা করতে হয়। এখন নতুন করে ৩শত ৬০ টাকা দিতে পারবনা।
ওই মাদ্রাসায় জেএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে নগদ ৩শত ৬০ টাকা আদায়ের পর প্রবেশ পত্র বিতরণ করা হচ্ছে। এনিয়ে অসহায় গরীর শিক্ষার্থী ও অভিভাবক মহলে চরম ক্ষুভ বিরাজ করছে। জানাযায়, জেএসসি পরীক্ষায় ৩১ জন শিক্ষার্থী প্রথমে পরীক্ষার ফি ও ফরম ফিলাপ বাবদ জনপ্রতি ৫৫ টাকা নেওয়া কথা তাকলেও মাদ্রাসার কর্তৃপক্ষ নগদ ৮শত টাকা করে আদায় করেন। পরীক্ষার প্রবেশ পত্রের জন্য ২শত টাকা নেওয়ার কথা এতে মাদ্রাসা জনপ্রতি ৩শত ৬০ টাকা আদায় করছেন। এ ব্যাপারে শিক্ষার্থী অভিভাবক সালেক মিয়া, আতিলখ, ইকবাল বলেন, আমরা অতি কষ্ট করে ছেলে মেয়েদের লেখা পড়া করার জন্য মাদ্রাসায় পড়াচ্ছি কিন্তু মাদ্রসা সুপার মিছবাহ সাহেব অতিরিক্ত টাকা চাওয়ায় দিতে আমরা হিমশিম খাচ্ছি। এ ব্যাপারে মাদ্রাসার সুপার এমএম মিছবাহুর রহমান প্রতিবেদকে জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকতার কার্যালয়ে বসে সকল পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে পরীক্ষা কালীন শিক্ষকের যাতায়াত, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সহ যাবতীয় খরচ সরকার না দেওয়ায় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করার সিদ্ধান্ত হয়। এ কারণে আমরা পূর্বেও করেছি এখন আদায় করছি। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. লুৎফুল্লাহীল শাফী বলেন, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ফি আদায় করা অন্যায়। এ ব্যাপারে খোজ নিয়ে দেখব। জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বেগম তাসলিমা আহম্মেদ পলি বলেন, আমি অতিরিক্ত দায়িত্বে ধর্মপাশায় ছিলাম, বিষয়টি আমি জানিনা, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা উত্তোলন করা অবৈধ। টাকা নেওয়ার বিষয় আমি গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখব।

Share Button
More from শিক্ষা ও সাহিত্যMore posts in শিক্ষা ও সাহিত্য »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *