Published On: Sat, Oct 22nd, 2016

বেনাপোলে সাংবাদিকের সম্পতি দখলে বাড়িতে হামলা। লুটপাট

বেনাপোল প্রতিনিধি : বন্দরনগরী বেনাপোলে শনিবার দিবাগত গভীর রাতে অন্যায় ভাবে রুবেল হোসেন নামে এক সাংবাদিকের সম্পতি জোর পূর্বক দখলের উদ্দেশ্যে পরিবারের উপর হামলা,ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। সাংবাদিক রুবেল বেনাপোল বন্দর প্রেসক্লাবের প্রচার সম্পাদক বলে জানা গেছে। এঘটনায় পোর্ট থানায় অভিযোগ দায়ের ও পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

সাংবাদিক রুবেল জানায়, তার পরিবারের সাথে জমি-জায়গা নিয়ে পূর্ব শত্রুতা ছিল প্রতিবেশি বেনাপোল পোর্টথানাধীন বড়আচড়া হরিনাপোতা গ্রামের ছাবদার আলীর ছেলে ইসরাফিলের। বৈধ কোন কাগজ পত্র না থাকলেও জোর পূর্বক তারা জমি দখলের জন্য বিভিন্ন ভাবে তাদের হুমকি দিয়ে আসছিল। শুক্রবার রাতে রুবেলের বাবা মোশারেফ হোসেন বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে জমি লিখে দেওয়ার জন্য হুমকি দেয় ইসরাফিল। এসময় তার বাবার সাথে ইসরাফিলের তর্কবিতর্ক হয়। এর জের ধরে গভীর রাতে ইসরাফিলের নেতৃত্বে একই গ্রামের শামসুর মুনসির ছেলে শহিদুল ও হাফিজুর,পুটে মড়লের ছেলে আইয়ুব হোসেন,শহিদুলের ছেলে শাহিনসহ ১৫ থেকে ২০ জন ধারালো অস্ত্র নিয়ে বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় বাড়ির গ্রিল ও আসবাব পত্র ভাংচুর করে এক লাখ দশ হাজার টাকা নিয়ে যায় বলে রুবেল জানায়। বিষয়টি তিনি রাতেই পুলিশকে জানিয়েছেন।

বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশের উপপরিদর্শক এসআই শফিক ও নুর আলম জানান, খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ওই সাংবাদিকের বাড়িতে গিয়েছিল। লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে সাংবাদিকের বাড়িতে হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে দ্রুত আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন, শার্শা প্রেসক্লাবের সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ,সাধারণ সম্পাদক ইয়ানুর রহমান,বেনাপোল বন্দর প্রেসক্লাবের উপদেষ্টা দৈনিক জনকন্ঠের আবুল হোসেন,সভাপতি শেখ কাজিম উদ্দিন,সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক,ভোরের কাগজের জেলা প্রতিনিধি আলমগীর হোসেন,গ্রামের সংবাদের সম্পাদক ও প্রকাশক এমএ মুন্নাফ সহ সাংবাদিক সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা।

Share Button

About the Author

Leave a comment

XHTML: You can use these html tags: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>