Published On: Mon, Dec 21st, 2015

আলহাজ্ব মহিউদ্দিন একটি জ্বলন্ত ইতিহাস একজন দু:খিনী মায়ের করুন আর্তনাদ ফয়সাল বিপ্লব

আব্দুস সালাম, মুন্সিগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জ পৌরবাসীর প্রতি দু কলম। প্রথম কলম মহিউদ্দিন সাহেব। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর যার আর্শিবাদ প্রাপ্ত সকল রাজনীতিবিদরা। কিন্তু ওনার দোয়ার সাথে মুনাফেকি ও বেইমানি করেছে সবাই। যার মাধ্যমে রাজনীতি সোপানে পৌছেছেন অনেকেই। ওনার স্ত্রী অনেকের পরিচিত অনেকের প্রিয় সম্মানীত। পৃথিবী থেকে বিদায় লগ্নে ¯েœহধন্য ছেলের রাজনৈতিক পরাজয় ও বেদনা নিয়ে পৃথিবী থেকে চলে গেছেন। আসুন আমরা এ বেদনা থকে ওনার মৃত আত্মাকে মুক্তি দেই। মৃত আত্মার নীরব কান্না কে আনান্দিত করি। ফয়সাল বিপ্লব বির্তকিত নন। এর বাবা অনেক সময় বির্তকিত হন। রাজনৈতিক প্রতিদান থেকে বঞ্চিত কারন মোটা বুদ্ধির অধিকারী এ রাজনীতিবিদ । ওনাকে রাগান্বিত করে অনেকেই ফায়দা লুটছেন অনেকেই কিন্তু ওনি বুঝতে পারছেন না। এছাড়া বয়স অনুযায়ী এখন ওনার উত্তরসুরী হিসেবে ফয়সাল ই নেতৃত্ব দেবার উপযুক্ত।ওনার উত্তরসূরী হিসেবে জনাব আনিস চেয়ারম্যান ও ফয়সাল বিপ্লব পারিবারিক ঐতিহ্য রক্ষা করার একমাত্র অবলম্বন। কথা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আ: হাই ও ওনার ছোটভাই মহিউদ্দিন আহম্দে ছোটভাই সমতুল্য। মুন্সীগঞ্জ জেলাকে অনেকেই মারামারি খুনাখুনি আবাসস্থল মনে করে । কিন্তু বাংলাদেশে একটি মাত্র জেলা মুন্সীগঞ্জ যেখানে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে কোন মারামারি খুনাখুনি নেই। শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখায় মহিউদ্দিন ও আনিস পরিবারের অবদান ও প্রশংসার দাবিদার। সত্যিই এ মাটি শান্ত। এখানে রাজনৈতিক মামলা ও মোকাদ্দমা ও কম । মানবতা মানবিক প্রশ্ন এখানে বিরাজমান। বর্তমানে মুন্সীগঞ্জ জেলার সবাই সম্মানিত ও পরিচিত এটা মহিউদ্দিন সাহেবের অবদান । ফয়সাল বিপ্লবকে এবার মেয়র নির্বাচিত করা মানবিক প্রশ্ন। সরব না থেকে নিরব থাকুন। মুন্সীগঞ্জ পৌর এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে ফয়সাল বিপ্লবের বিকল্প নাই। আসুন সবাই মিলে অন্তত এবারের জন্য মুন্সীগঞ্জের মাটি ও মানুষের কথা ভাবী। সবাই মিলে একটি জাগ্রত সত্যকে স্বীকৃতি প্রদান করি । মুনাফিকি বেইমানির অবসান ঘটিয়ে মৃতু আত্তার শান্তির জন্য ফয়সাল বিপ্লবকে এগিয়ে নিয়ে যাই। মহিউদ্দিন সাহেব সারাজীবন কাটিয়ে দিলেন রাজনীতিতে । সংসার জীবনেও উদাসীন ছিলেন। তাই সবাই মিলে জাতির ধর্ম নির্বিশেষে রাজনীতির উর্ধ্বে থেকে ফয়সাল বিপ্লবকে মেয়র নির্বাচিত করি।

মুক্তিযোদ্ধের ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি প্রকৃত সম্মান ও অবদানের কথা সরন রেখে বলতে হয় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী গনতন্ত্রের মানষকন্যা শেখ হাসিনা ও মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী জনপ্রতিনিধিত্য কোটায় মুক্তিযোদ্ধা কোটা ও আসন সংরক্ষিত করিবেন । অর্থাৎ প্রতিটি সিটি কর্পোরেশনে ও ইউনিয়ন পরিষদে কাউন্সিলর ও মেম্বার পদে মুক্তিযোদ্ধা আসন সংরক্ষিত থাকবে । বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা কমান্ডার প্রতিটি জেলা থেকে জাতীয় পরিষদ সদস্য নিযুক্ত হবেন। সরকারি আইন প্রনয়ণ করতে হবে। তাতে প্রমানিত হবে বর্তমান সরকার মুক্তিযোদ্ধের সরকার । আর যদি তাহা না করা হয় তবে সরকার মুনাফেক প্রমানিত হবে। বর্তমান জেলা কমান্ডার আনিস সাহেব কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের চেয়ারম্যান সাথে আলাপ করে দাবীর প্রস্তাবখানা মন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী এবং প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবরে পৌছে দেবেন। এবং এ অবদানের জন্য সাথে সাথে আনিস সাহেবকে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নিয়োগ দান করবেন।

বর্তমানে মুন্সীগঞ্জ জেলার নির্বাচনে ব্যালেন্স রাজনীতি প্রয়োজন। মেয়র আওয়ামিলীগ সদস্য ফয়সাল বিপ্লব । উপজেলা চেয়ারম্যান বি.এন.পি মনোনীত প্রার্থী । পরবর্তী এমপি জনাব মো: আনিস মুক্তিযোদ্ধা কোটায় আওয়ামিলীগ এ সমোঝোতা আসলে ভাল হয় । এটা আমার ব্যাক্তিগত অভিমত। মুন্সীগঞ্জের সার্বিক উন্নয়ন ও শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় আমরা সবাই মহিউদ্দিন ও আনিস পরিবারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করিতেছি এবং ভবিষতে এ ধারা অব্যহত থাকবে বলে দৃঢ় বিশ্বাস করি।

বিগত নির্বাচনে বর্তমান এমপি এডভোকেট মৃনাল কান্তি দাস এর বিরুদ্ধে ৬টি মনোনয়ন পত্র বাতিল বলিয়া গন্য করা হয়। এ নিয়ে জনমনে আশংকা দেখা দিয়েছে। প্রশাসনের ওপর অনেকের আস্থা ও হারিয়েছেন। কিন্তু আমার জানামতে এ ব্যাপারে রির্টানিং অফিসার জেলা প্রশাসক নির্দোষ। ওনি ওপরের নির্দেশ অনুযায়ি কাজ করে যান। আমি বলতে চাই মহিউদ্দিন সাহেবের ছেলে প্রশাসনের নিকট ও সন্তান সমতূল্য । মহিউদ্দিন সাহেব রাজনৈতিক জীবনে প্রতিদান পাননি । কেহ দেয় নি, আসুন এবারের নির্বাচনে এ সুযোগ কাজে লাগাই এবং ওনার ছেলেকে মেয়র নির্বাচিত করি। মহিউদ্দিন সাহেব সবার গুরু ও শ্রদ্ধেয় ব্যাক্তি হিসেবে চির অটুট চিরঅমলান থাকবেন। রাজনীতিতে ডিবাইড এন্ড রোল এ প্রথাকে ঘৃনা করি। সংগ্রাম ও ফয়সাল বিপ্লবের এ কথা বুঝা উচিত। এ ভূল বুঝাবুঝির ইন্দনদাতা কে ঘৃনা করতে শিখি। সবাই মিলে করি কাজ হারি জিতি নাহি লাজ। বিবেক ও বুদ্ধি খাটিয়ে কাজ করি।

Share Button

About the Author

-