Published On: Tue, Nov 24th, 2015

ধর্মপাশায় সেলবরষ ইউনিয়নের পরিক্রমা 

Share This
Tags

111মো. শাহীন আলম, সুনামগঞ্জ ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি:: ধর্মপাশা উপজেলার সেলবরষ ইউনিয়নের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা অনেক আগে থেকেই প্রচরাণায় মাঠে নেমেছেন। ইউনিয়নের উল্লেখযোগ্য জায়গা, হাট-বাজারসহ উপজেলা সদরে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীদের নানান রঙের পোস্টার সাঁটিয়ে দেওয়া হয়েছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার আশায় সংশ্লিষ্ট্য নেতাকর্মীদের সাথে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। যোগ দিচ্ছেন স্ব-স্ব দলের মিটিং মিছিলে। নিজেকে দলীয় পরিচয়ে প্রকাশ করতে অবলম্বন করছেন নানান কৌশল। পোস্টার ব্যানারে ব্যবহার করছেন দলীয় পরিচয় বহন করে এমন নেতাদের ছবি।
জানা যায়, গেল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সেলবরষ ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত আলী আমজাদ তারঁ নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি মুক্তিযোদ্ধা নূর হোসেনকে পরাজিত করে জয় লাভ করেন। আলী আমজাদ বতর্মান উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় মনোয়ন প্রত্যাশী। অপরদিকে জেলা যুবদল নেতা মোহাম্মদ আলী দলীয় মনোয়ন নিয়ে আসন্ন নির্বাচনে অংশ নিতে চান। বিএনপি সমর্থিত অন্যান্য পদপ্রার্থীরা হলেন, জিয়াউল হক লিটন, বিএনপি সমর্থিত জুলফিকার আলী ভূট্টো, শামসুল আলম প্রমুখ।
এ ইউনিয়নের অন্যান্য সম্ভাব্য পদপ্রার্থীরা হলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক সাইদুর রহমান চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা নূর হোসেন, উপজলো আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দেনিয়ার হোসেন খান পাঠান, সেলবরষ ইউয়িন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আলা উদ্দিন শাহ্, আওয়ামী লীগ নেতা সুলতান উদ্দিন তালুকদার, বাদশাগঞ্জ আঞ্চলিক শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শাহ আবদুল বারেক ছোটন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত মুশফিকুর রহমান মানিক, সাব্বির আহমেদ জনি, ছানাউল হক ছানা, নুরুল হুদা মুকুল। তবে সময়ের সাথে সাথে সম্ভাব্য পদপ্রার্থীর সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।
সম্ভাব্য পদপ্রার্থীরা তাঁদের সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ভোটারদের মন জয় করে সমর্থন আদায় করতে। ইউয়িনের মধ্যে অবস্থিত পুরনো আত্মীয় স্বজন খুঁজে বের করে সম্পর্ক ঝালাইয়ের কাজ করছেন কোনো কোনো সম্ভাব্য পদপ্রার্থী। গরীব দুখী মানুষের পাশে নিজ থেকেই পাশে দাঁড়াচ্ছেন কেউ কেউ। বাড়িয়ে দিচ্ছেন সহায়তার হাত। হয়ত এভাবেই চলতে থাকবে ভোটের দিন পর্যন্ত। তবে ভোটের পরেও যেন বিজয়ী প্রার্থীর মানসিকতা গরীব দুখী মানুষের সেবায় ব্রত থাকে এমন প্রত্যাশা সকলের।

Share Button

About the Author

-