Press "Enter" to skip to content

অবশেষে কুড়িগ্রামের বিলুপ্ত ছিটমহলের ৭২ বাসিন্দা ভারত গেলেন

ডেইলি খবর, কুড়িগ্রাম : দ্বিতীয় দফায় ভারত গেলেন কুড়িগ্রামের অভ্যন্তরে সদ্য বিলুপ্ত ১২টি ছিট মহলের মধ্যে দু’টি ছিটমহল থেকে ১৫টি পরিবারের ৭২ জন বাসিন্দা। এর মধ্যে ফুলবাড়ী উপজেলার ১০টি পরিবারের ৪৯ জন ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ৫টি পরিবার থেকে ২৩ জন ভারতে যাওয়ার জন্য রোববার সকাল ১১টায় ভুরুঙ্গামারী উপজেলার বাগভন্ডার সীমান্তের অস্থায়ী চেক পয়েন্টে পৌঁছেন। সেখানে ইমিগ্রেশনের মাধ্যমে তাদের ট্রাভেল পাশ পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর দুপুর দেড়টায় ভারতের ইমিগ্রেশনের মাধ্যমে ভারতে প্রবেশ করেন। ভারতগামীদের কাগজপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তাদেরকে বরণ করেন ভারতের কুচবিহারের ডিএম পিউল গানাথনসহ বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনের সচিব অভিজিত মিত্র।

এ সময় বাংলাদেশের পক্ষে কুড়িগ্রাম জেলা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. রফিকুল ইসলাম, ৪৫ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন কুড়িগ্রামের পরিচালক লে. কর্নেল মো. জাকির হোসেন, ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাছির উদ্দিন মাহমুদ ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন ভুইয়াসহ এবং জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে জেলা প্রশাসনের সহায়তায় প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে মিনিবাস ও পিকআপ যোগে সকাল ১০টায় তারা স্ব-স্ব ছিটমহল থেকে বাগভান্ডারের উদ্দেশে রওয়ানা দেন। এসময় তাদের আত্মীয় স্বজনসহ দীর্ঘ দিনের পরিচিত জনদের মাঝে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। ফুলবাড়ী উপজেলার বিলুপ্ত দাসিয়ার ছড়া ছিটের বাসিন্দা লক্ষী রাণী জানান, আমার দুই ছেলে, ছেলের বউ এবং নাতি-নাতনিসহ ১০ জন ভারতে যাচ্ছি। যেতে খুব খারাপ লাগছে কিন্তু উপায় নেই। আমার কিছু আত্মীয় স্বজন ভারতে থাকায় সেখানে যেতে হচ্ছে।

একই ছিটের বাসিন্দা সামছুল হক জানান, আমরা একই পরিবারের ৯ জন ভারতে যাচ্ছি। আরো ৪ ভাইসহ বাবা-মা বাংলাদেশে থাকবে। জন্মভূমি ছেড়ে যেতে খুবই খারাপ লাগছে। কুড়িগ্রাম জেলার অভ্যন্তরের ১২টি বিলুপ্ত ছিটমহলের মধ্যে শুধু ২টি ছিটমহলের ৬৭ পরিবারের ২৬৫ জন বাসিন্দা ভারতে নাগরিকত্ব নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। এর মধ্যে প্রথম দফা ২২ নভেম্বর ভারত যাবেন ফুলবাড়ী উপজেলার দাসিয়ার ছড়ার ১০ পরিবারের ৪৯ জন ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার গাড়োলঝাড়া সাবেক ছিটের ৫ পরিবারের ২৩ জন। দ্বিতীয় দফায় ২৪ নভেম্বার ভারতে যাবেন দাসিয়ারছড়ার ৩০ পরিবারের ১১৫ জন ও তৃতীয় দফায় ভারত যাবেন দাসিয়ার ছড়ার ২৭ পরিবারের ৭৮ জন। কুড়িগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. রফিকুল ইসলাম জানান, কুড়িগ্রাম জেলার ১২টি ছিমহল থেকে ৩০৫ জন ভারতের নাগরিকত্ব নিয়ে ভারতে যাওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত ২৬৫ জন ভারতে যাওয়া চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়। এর মধ্যে রোববার ভারতে গেলেন দু’টি ছিট মহলের ১৫টি পরিবারের ৭২ জন। আগামী ২৪ নভেম্বর ভারতে যাবেন ৩০ পরিবারের ১১৫ জন এবং ২৬ নভেম্বর যাবেন ৩৭ পরিবারের ৩৮ জন।

Share Button
More from রংপুরের খবরMore posts in রংপুরের খবর »